প্রবন্ধ রচনা: বিশ্বকাপ ফুটবল | ফুটবল খলা রচনা | ফিফা বিশ্বকাপ রচনা | প্রিয় খেলা ফুটবল রচনা | খেলার রাজা ফুটবল রচনা

বিশ্বকাপ ফুটবল

এছাড়াও আরো যেসকল বিষয় সম্পর্কে লিখতে পারবে:
👉ফুটবল খলা
👉ফিফা বিশ্বকাপ
👉প্রিয় খেলা ফুটবল
👉খেলার রাজা ফুটবল
প্রবন্ধ রচনা: বিশ্বকাপ ফুটবল | ফুটবল খলা রচনা | ফিফা বিশ্বকাপ রচনা | প্রিয় খেলা ফুটবল রচনা | খেলার রাজা ফুটবল রচনা

সূচনা:

সারা বিশ্বে বর্তমানে যে খেলাটি অত্যন্ত জনপ্রিয় তা হল ফুটবল । আর বিশ্বের বাছাই করা দল নিয়ে প্রতি চার বছর পর পর ফুটবলের যে প্রতিযােগিতা অনুষ্ঠিত হয় তাই বিশ্বকাপ ফুটবল নামে পরিচিত । বিশ্বকাপ ফুটবলকে ঘিরে সারা বিশ্বে যে আগ্রহ - উদ্দীপনা ও উন্মাদনা দেখা দেয় তা সত্যই বিস্ময়কর , অভূতপূর্ব । আর কোন খেলায় এত বেশী সংখ্যক মানুষকে একসঙ্গে এভাবে মেতে উঠতে দেখা যায় না ।

বিশ্বকাপ ফুটবলের ইতিহাস:

বিশ্বকাপ ফুটবলের ইতিহাস খুব বেশী দিনের নয় । ১৯৩০ সালে এর যাত্রা শুরু । তঙ্কালীন ফরাসী ফুটবল এসােসিয়েশনের সভাপতি মশিয়ে জুলেরিমের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় ১৯৩০ সালে উরুগুয়েতে প্রথম বিশ্বকাপ ফুটবল প্রতিযােগিতা অনুষ্ঠিত হয় । সেই থেকে প্রতি চার বছর পর পর এটি পূর্ব হতে নির্ধারিত দেশে অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে । কিন্তু এই নিয়মের ব্যতিক্রম ঘটে ১৯৪২ ও ১৯৪৬ সালে । দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের কারণে এ দুই সময়ে বিশ্বকাপ অনুষ্ঠিত হতে পারেনি । প্রথম বিশ্বকাপে অংশগ্রহণকারী দলের সংখ্যা ছিল ১৩ টি । পরবর্তীতে ২৪ টি দেশ এতে অংশগ্রহণ করার সুযোগ পায় , আর ১৯৯৮ সালে বিশ্বকাপ ফুটবল অনুষ্ঠিত হয়েছিল ৩২ টি দল নিয়ে ।

ফিফা:

ফুটবলের সঙ্গে যে নামটি অঙ্গাঙ্গীভাবে জড়িত তা হল ফিফা ( FIFA- যার পুুর নাম - Federation of International Football Association ) ১৯০৪ সালে এটি প্রতিষ্ঠিত হয় । ফিফা ফুটবলের পরিচালনা সংস্থা । ফিফার তত্ত্বাবধানে বিশ্বকাপ ফুটবল প্রতিযােগিতা অনুষ্ঠিত হয় । শুধু বিশ্বকাপ ফুটবলই নয় , সারাবিশ্বের যেখানেই ফুটবল খেলা অনুষ্ঠিত হােক না কেন , তা ফিফা প্রবর্তিত নিয়ম অনুযায়ীই হতে হয় । কেউ এ নিয়ম ভঙ্গ করলে ফিফা তার শাস্তির বিধান করার অধিকার রাখে ।

বিশ্বকাপ ট্রফি:

ক্রীড়াপ্রেমিক জুলেরিমের নাম অনুসারে বিশ্বকাপের প্রথম ট্রফির নামকরণ করা হয় জুলেরিমে ট্রফি । এ ট্রফির ওজন ছিল ১১ পাউণ্ড এবং উচ্চতা ১২ ইঞ্চি । সােনার তৈরি এ ট্রফিটি দেখতে ছিল ঠিক পরীর মত । সেই সময় নিয়ম ছিল , যে দেশ তিনবার চ্যাম্পিয়ন হবে তাকে চিরতরের জন্য ট্রফিটি দিয়ে দেয়া হবে । ব্রাজিলই হলাে একমাত্র দেশ , যে এ ট্রফিটি নিজের ঘরে তুলে নিয়েছে তিনবার বিশ্বচ্যাম্পিয়ন হয়ে ( ১৯৫৮ , ১৯৬২ ও ১৯৭০ সাল ) । অবশ্য পরবর্তীতে ফিফা এ নিয়ম বাতিল করে দেয় এবং ১৯৭১ সালে নতুন করে বিশ্বকাপের ট্রফি তৈরি করে । এটিই বর্তমান বিশ্বকাপ ট্রফি । এর ওজন ৫ কে . জি . উচ্চতা ৩৬ সেঃ মিঃ এবং এটি ১৮ ক্যারেট নিখাদ সােনা দিয়ে তৈরি । বাংলাদেশী মুদ্রায় এর মূল্য প্রায় ৯ লক্ষ টাকার উর্ধে । এ ট্রফি বিজয়ীদলকে কিছুক্ষণ আনন্দ - উল্লাসের জন্য দেয়া হয় এবং পরে ফেরত নিয়ে এর একটি প্রতিকৃতি ও সমপরিমাণ মূল্য বিজয়ী দলকে দেয়া হয় । ট্রফি ছাড়াও , বিজয়ী দলের প্রত্যেক খেলােয়াড়কে একটি করে সােনার মেডেল এবং রানার্স আপ দলের প্রত্যেক খেলােয়াড়কে একটি করে রূপার মেডেল প্রদান করা হয় । তাছাড়া সবগুলাে প্রতিযােগিতায় সর্বোচ্চ গােলদাতাকে সােনার বুট এবং শ্রেষ্ঠ খেলােয়াড়কে একটি সােনার বল দিয়ে পুরস্কৃত করা হয় ।

বিশ্বকাপ ফুটবল খেলার নিয়ম:

বিশ্বকাপ ফুটবল প্রতিযােগিতার প্রতিটি খেলা বিরতিসহ মােট ৯০ মিনিট ধরে অনুষ্ঠিত হয় । নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে খেলা অমীমাংসিত থাকলে অর্থাৎ জয় - পরাজয় নির্ধারিত না হলে ফিফা'র নিয়ম অনুযায়ী ( ১৯৯৮ সাল থেকে প্রবর্তিত ) উভয় পক্ষকে সামান্য বিরতিসহ ১৫ + ১৫ = ৩০ মিনিট অতিরিক্ত সময় খেলার জন্য দেয়া হয় । এ অতিরিক্ত সময়ের খেলায় খেলা শুরুর পর যে কোন পক্ষ প্রথম গােল করলেই খেলা শেষ হয় এবং সেই দলকে বিজয়ী ঘােষণা করা হয় । কিন্তু অতিরিক্ত ৩০ মিনিটের মধ্যেও যদি খেলা গােলশূন্য থাকে , তবে ‘ টাইব্রেকারে অর্থাৎ উভয় দল ৫ টি করে পেনাল্টি কিক করে গােল করার সুযােগ পায় । টাইব্রেকারে দ্বারাই খেলার জয় পরাজয় নির্ধারণ করা হয় এবং অধিক গােলদাতা দলকে জয়ী ঘােষণা করা হয় ।

বিশ্বকাপ ১৯৯৮ :

প্রতি চার বছর পর পর খেলা অনুষ্ঠানের নিয়ম অনুসারে ১৯৯৪ সালের পরে ১৯৯৮ সালে ফ্রান্সে বিশ্বকাপ ফুটবল প্রতিযােগিতা অনুষ্ঠিত হয় । এ প্রতিযােগিতায় মােট ৩২ টি দেশ অংশগ্রহণ করে । এ খেলায় ম্যাচের সংখ্যা ছিল ৬৪ টি । শতাব্দীর শেষ বিশ্বকাপের ফাইনাল খেলাটি অনুষ্ঠিত হয় ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসে । ফাইনাল খেলায় অংশগ্রহণ করে ব্রাজিল ও স্বাগতিক দেশ ফ্রান্স । ফ্রান্স , ৩-০ গােলে ৪ বারের চ্যাম্পিয়ন ব্রাজিলকে পরাজিত করে বিশ্বকাপ জয়ের গৌরব অর্জন করে ।

উপসংহার:

বিশ্বকাপ ফুটবল প্রতিযােগিতা অনুষ্ঠিত হয় পৃথিবীর সেরা সেরা ফুটবল দল নিয়ে । ফলে প্রতিযােগিতাটি হয় যেমন উপভােগ্য , তেমনি আনন্দদায়ক । এ খেলাকে ঘিরে সারা বিশ্বের মানুষ মেতে ওঠে এক অভিন্ন আনন্দধারায় , এক অভিন্ন উন্মাদনায় এবং গড়ে ওঠে বিশ্বভ্রাতৃত্ব । মনে হয় , এ যেন এক বিশ্বজনীন উৎসব । এ কারণে বিশ্বকাপ ফুটবল সারা বিশ্বের কাছে এত গুরুত্বপূর্ণ ।



আরো পড়ুন:
পরবর্তী পোস্ট পূর্ববর্তী পোস্ট
No Comment
আপনার মন্তব্য জানান
comment url