প্রবন্ধ রচনা: শিক্ষাঙ্গনে সন্ত্রাস | রচনা ছাত্ররাজনীতি | ছাত্ররাজনীতির সুফল ও কুফল রচনা

শিক্ষাঙ্গনে সন্ত্রাস

এছাড়াও আরো যে বিষয় সম্পর্কে লিখতে পারবে:
👉ছাত্ররাজনীতি
👉আমাদের রাজনীতি ও ছাত্রসমাজ
👉ছাত্ররাজনীতির সুফল ও কুফল
👉ছাত্ররাজনীতি ও সন্ত্রাস
প্রবন্ধ রচনা: শিক্ষাঙ্গনে সন্ত্রাস | রচনা ছাত্ররাজনীতি | ছাত্ররাজনীতির সুফল ও কুফল রচনা

ভূমিকা :

বাংলাদেশে ছাত্ররাজনীতি একটি আলােচিত ও সমালােচিত বিষয় । এর যেমন প্রশংসনীয় দিক রয়েছে তেমনি নিন্দনীয় দিকও রয়েছে । বস্তুত বাংলাদেশে ছাত্ররাজনীতি আজকের দিনে জাতির জন্যে অত্যন্ত দুশ্চিন্তার কারণ হয়ে দাড়িয়েছে । সুমহান ঐতিহ্য থাকা সত্ত্বেও ছাত্ররাজনীতি বন্ধের জন্যে জোরালাে জনমত সৃষ্টি হয়েছে । এখন ছাত্ররাজনীতির বিষয়ে জাতীয় ঐকমত্যের ভিত্তিতে সিদ্ধান্ত নেবার সময় এসেছে ।

ছাত্ররাজনীতি কী :

ছাত্ররাজনীতি বলতে বােঝায় ছাত্রদের দ্বারা পরিচালিত সংগঠিত আন্দোলন- যা ছাত্রসমাজের অধিকার ও যুক্তিসঙ্গত দাবি - দাওয়া আদায়ের লক্ষ্যে পরিচালিত হয় । বৃহত্তর অর্থে , সচেতন ছাত্রসমাজ কর্তৃক পরিচালিত সংগঠনের নির্দেশে ও নেতৃত্বে পরিচালিত রাজনৈতিক কার্যক্রম । জাতীয় রাজনীতির বিভিন্ন জনস্বার্থ বিষয়েও ছাত্রদের মতামত দান ও ভূমিকা পালনও ছাত্ররাজনীতির অংশ । তবে ছাত্ররাজনীতি মূলত ছাত্রসমাজের স্বার্থকেন্দ্রিক হওয়াই যুক্তিযুক্ত ।

বাংলাদেশে ছাত্ররাজনীতির প্রবণতা :

ছাত্রসংগঠনগুলাে স্বনির্ভর , স্বকীয় কর্মসূচিকেন্দ্রিক হবে এটাই কাঙিক্ষত । তবে ঐতিহাসিকভাবে এদেশের ছাত্ররাজনীতি জাতীয় রাজনীতিরই স্রোতােধারাকেন্দ্রিক । মূল রাজনৈতিক সংগঠনগুলাের অন্যতম শাখা সংগঠন বা অঙ্গসংগঠন হিসেবেই ছাত্ররাজনীতি পরিচালিত হয়েছে । তবে গুরুত্বপূর্ণ জাতীয় ইস্যুতে ছাত্রসংগঠনগুলাে অভিন্ন কর্মসূচিতে ঐক্যবদ্ধ হয়েছে এমন নজিরও রয়েছে । এদেশের ছাত্ররাজনীতি ছাত্রদের স্বার্থের চেয়ে জাতীয় রাজনীতিকে বেশি গুরুত্ব দিয়ে এসেছে এবং মূল সংগঠনগুলাের দৃষ্টিতেই বিভিন্ন জাতীয় ইস্যুকে গ্রহণ করেছে । ফলে স্বাধীনতা যুদ্ধের সময়েও কতিপয় ছাত্র সংগঠন হানাদার বাহিনীর সাথে হাত মিলিয়ে গণহত্যায় অবতীর্ণ হতে দ্বিধা করে নি । মূল রাজনৈতিক দলের অঙ্গসংগঠনরূপে বর্তমানে আওয়ামী লীগের বাংলাদেশ ছাত্রলীগ , জাসদের ছাত্রলীগ ( জাসদ ) , জাতীয়তাবাদী দলের জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল , কমিউনিষ্ট পার্টির ছাত্র ইউনিয়ন , জামায়াতে ইসলামীর ইসলামী ছাত্র শিবির প্রভৃতি সক্রিয় হয়েছে ।

বাংলাদেশে ছাত্ররাজনীতির সূচনা :

বাংলাদেশের ছাত্ররা সরাসরি জাতীয় রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়ে বিংশ শতাব্দীর শুরুতে স্বদেশী আন্দোলনের সময় । এ সময় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকেন্দ্রিক অনেক গােপন সমিতি গড়ে উঠে এবং তাতে যুক্ত হয়ে ছাত্র সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে অংশগ্রহ করে । সূর্যসেন , পুলিন বিহারী দাস , বাঘা যতীন , ক্ষুদিরাম , প্রফুল্ল চাকী , বীনা দাস , সুনীতি চৌধুরী , শান্তি ঘােষ প্রমুখ বিপ্লবীর প্রায় সবাই ছিলেন ছাত্র - ছাত্রী বা শিক্ষক । ১৯২১ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার পর ছাত্ররাজনীতি সাংগঠনিক রূপ পরিগ্রহ করে এবং পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার পর স্থানীয় রাজনৈতিক দল গঠিত হবার ফলে জন্ম হয় ছাত্র সংগঠনের ।

ছাত্ররাজনীতির অবদান :

১৯৪৭ সালে ভারত বিভাগ ও পাকিস্তান রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার পর আজ পর্যন্ত বাংলাদেশের ছাত্রসমাজ বিভিন্ন ইস্যুতে অবিমরণীয় ভূমিকা পালন করেছে । নিম্নে ছাত্রসমাজের রাজনৈতিক সচেতনতার ফসল হিসেবে বিভিন্ন ইস্যু ও আন্দোলনে তাদের অবদানের ক্ষেত্রসমূহ চিহ্নিত করা হলাে :

ভাষা আন্দোলন: ১৯৪৭ সালে পাকিস্তান রাষ্ট্র গঠন করার পর পশ্চিম পাকিস্তানি শাসকচক্ৰ সৰ্বমুখী বৈষম্যনীতি চাপিয়ে দেয় বাংলার মানুষের ওপর । এর অংশ হিসেবে বাংলা ভাষাকে বাদ দিয়ে একমাত্র উর্দুকে রাষ্ট্রভাষা হিসেবে প্রতিষ্ঠা করার অপচেষ্টা চালায় । শুন্য থেকেই এর বিরুদ্ধে রুখে সাঁড়ায় এদেশের ছাত্রসমাজ । ধারাবাহিক আন্দোলনে নেতৃত্ব দেয় ছাত্ররা , তখন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় হয়ে দাঁড়ায় অগ্নিগর্ভ এক দুর্গ । ১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করে রাষ্ট্রভাষা বাংলা চাই ' বলে গর্জে উঠেছিল বাংলার সংগঠিত ছাত্রসমাজ । অকাতরে তারা প্রাণ দিয়ে সেদিন ছিনিয়ে এনেছিল মাতৃভাষার সম্মান ।

৬২ - এর শিক্ষা আন্দোলন :১৯৬২ সালে হামিদুর রহমান শিক্ষা কমিশন এদেশের স্বার্থবিরােধী শিক্ষানীতি প্রণয়ন করলে ছাত্ররা তীব্র প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে । ছাত্রদের এ আন্দোলন শাসকগােষ্ঠীর দুরভিসন্ধি মাটি করে দেয় ।

৬৯ - এর গণআন্দোলন : পাকিস্তানি শাসকগােষ্ঠীর বিরুদ্ধে উত্তাল গণআন্দোলনের প্রাণপ্রবাহ হয়ে দাড়ায় এদেশের সচেতন ছাত্রসমাজ । ছয় দফা আন্দোলন ও আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা - বিরােধী আন্দোলনের পটভূমিতে ছাত্ররা পেশ করে ১১ দফা দাবি । এ ১১ দফা আন্দোলনের বিরুদ্ধে সরকার কঠোর নীতি গ্রহণ করলে সারাদেশ এ সময় উত্তাল আন্দোলনে টালমাটাল হয়ে পড়ে । পুলিশের গুলিতে মারা যান রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ড . শামসুজ্জোহা । এর ফলে দেশব্যাপী দুর্বার গণঅভ্যুত্থান শুরু হয় । ১১ দফা আন্দোলনের সূত্র ধরে সারাদেশ অগ্নিমন্ত্রে জেগে উঠে ।

৭১'র মুক্তিযুদ্ধ : ৭০'র নির্বাচনে জনমত গঠনে ছাত্রসমাজ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে । ২৫ মার্চের কালােরাতের পর সশস্ত্র প্রতিরােধ শুরু হলে ছাত্ররা মুক্তিবাহিনীতে যােগ দেয় এবং অকাতরে দেশমাতৃকার জন্যে জীবন দান করে । হাজার হাজার ছাত্র মুক্তিযুদ্ধে শহিদ হয় । দেশের মুক্তিযুদ্ধে ছাত্রসমাজের অবদান জাতির ইতিহাসে স্বর্ণাক্ষরে লিখিত থাকবে ।

৯০ - এর দশকে স্বৈরাচারবিরােধী আন্দোলন : সর্বশেষ বাংলাদেশের ছাত্রসমাজ ৯০ - এর দশকে স্বৈরাচারী শাসকের বিরুদ্ধে দুর্বার আন্দোলন গড়ে তােলে । স্বৈরাচারের লেলিয়ে দেওয়া পেটুয়া বাহিনীর হাতে সেলিম , দেলােয়ার , জেহাদসহ অনেকে প্রাণ দেয় । স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনে সকল ছাত্র সংগঠন ঐক্যবদ্ধ কর্মসূচিতে এগিয়ে যায় এবং জাতীয় রাজনীতির গতিপথ তৈরি করে । অবশেষে স্বৈরাচারের পতন ঘটে ।

ছাত্ররাজনীতি ও শিক্ষাঙ্গণে সন্ত্রাস :

সােনালি অতীত থাকা সত্ত্বেও বাংলাদেশের ছাত্ররাজনীতিতে সন্ত্রাসের অপচ্ছায়া দীর্ঘদিন যাবৎ জাতির জন্যে দুর্ভাবনার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে । স্বাধীনতা পূর্বকালে ছাত্রসংগঠনগুলাের মধ্যে দ্বন্দ্ব থাকলেও তা মারাত্বক সহিংসতায় রূপ নেয় নি । স্বাধীনতা পরবর্তীকালে ১৯৭৪ সালের ৪ এপ্রিল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মুহসীন হলে সন্ত্রাসী হামলায় সাত জন ছাত্র প্রাণ হারায় । এরপর থেকে ছাত্ররাজনীতিতে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড দিনে দিনে বৃদ্ধি পেতে থাকে । সংবাদপত্রের হিসেব অনুযায়ী , ১৯৭৪ সাল থেকে ১৯৯০ সালের মধ্যে শিক্ষাঙ্গনে সহিংস ঘটনায় ১২৮ জন ছাত্র প্রাণ হারিয়েছে এবং মারাত্মক জখম হয়েছে ৪২৯০ জন । গত শতাব্দীর নব্বইয়ের দশকে স্বৈরাচারী সরকার ছাত্রদের হাতে অস্ত্র তুলে দেয় । অন্যান্য ছাত্র সংগঠনগুলােও অস্ত্রের ভাষাতেই তার জবাব দেয় । ফলে বিশ্ববিদ্যালয়গুলােতে অস্ত্রের ভাণ্ডার তৈরি হয় এবং পবিত্র শিক্ষাঙ্গণে সশস্ত্র সংঘাত মারাত্মক আকার ধারণ করে । ছাত্র সংঘর্ষে বিশ্ববিদ্যালয় ও উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলাে বার বার অনির্ধারিতভাবে বন্ধ হয়ে যায় । ফলে সৃষ্টি হয় সেশন জট । শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা সমাপনের আগেই তাদের কর্মক্ষেত্রে প্রবেশের বয়স চলে যায় ।

ছাত্ররাজনীতির বর্তমান অবস্থা :

বাংলাদেশের ছাত্ররাজনীতি এখনাে সুস্থ ধারায় ফিরে আসে নি । ছাত্রসংগঠনগুলাে বৃহৎ রাজনৈতিক দলগুলাের লেজুড়বৃত্তিতে মত্ত । রাজনৈতিকভাবে সক্রিয় ছাত্ররা আজ অত্রবাজি , টেন্ডারবাজি , তদবিরবাজি , খুন - রাহাজানি , মাস্তানি , ছিনতাই এমন কোনাে অপকর্ম নেই যা করে না । সম্প্রতি রাজধানীতে দিবালােকে টাকা ছিনতাইকালে দুজন ছাত্রনেতা গ্রেফতার হবার পর ছাত্ররাজনীতির নামে অপকর্মের নানা কাহিনী বেরিয়ে আসে । কিছুদিন আগে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন ছাত্র নেতার ধর্ষণের সেঞ্চুরি পূর্ণ করার ঘােষণায় দেশব্যাপী আলােড়ন সৃষ্টি হয় । এসব ছাড়াও দলীয় অভ্যন্তরীণ কোন্দলে প্রতিদিন সংঘাত - হানাহানি ঘটছে । তাই বর্তমানে ছাত্ররাজনীতির বিষয়ে জনগণের নেতিবাচক মনােভাব জোরালাে হয়েছে । সর্বমহল থেকে বর্তমানে ছাত্ররাজনীতি নিষিদ্ধ বা বন্ধ করার জোর দাবি উঠেছে ।

উপসংহার :

বাঙালির যা কিছু অর্জন তার কৃতিত্বের অনেকখানি ছাত্রসমাজের প্রাপ্য । ছাত্ররাজনীতির সুমহান ঐতিহ্য আজ আর নেই । বর্তমানে ছাত্ররাজনীতিতে যা চলছে তা জাতির সার্বিক উন্নতির জন্যে উদ্বেগ বয়ে এনেছে । বর্তমানে আইন করে ছাত্ররাজনীতি নিষিদ্ধ করার সময় এসেছে । জাতীয় রাজনীতির অসুস্থ ধারাকে ছাত্ররা যেভাবে বয়ে বেড়াচ্ছে তাতে আমাদের আগামী প্রজন্মের শিক্ষার্থীদের ভবিষ্যৎ নিয়ে যথেষ্ট উদ্বেগ সৃষ্টি হয়েছে । দেশের মানুষ ছাত্ররাজনীতির নামে আর রক্তপাত ও সংঘাত দেখতে চায় না । জাতি ছাত্রদের হাতে বই - খাতা - কলম দেখতে চায় । প্রধান প্রধান রাজনৈতিক দল ও নেতাদের জাতির এ মনােভাবের প্রতি শ্রদ্ধা প্রদর্শন করতে হবে ।

পোস্ট ট্যাগ-

ছাত্ররাজনীতির প্রয়োজনীয়তা রচনা, ছাত্র রাজনীতির উপকারিতা, ছাত্র সমাজ ও রাজনীতি রচনা, শিক্ষকের প্রতি ছাত্রের দায়িত্ব ও কর্তব্য রচনা, ছাত্র শিক্ষক দায়িত্ব ও কর্তব্য pdf, ছাত্র জীবনের দায়িত্ব ও কর্তব্য রচনা class 5, ছাত্রজীবনের দায়িত্ব ও কর্তব্য রচনা, ছাত্রজীবনের দায়িত্ব ও কর্তব্য রচনা ২৫ পয়েন্ট, ছাত্র জীবন রচনা class 6, ছাত্র সমাজ রচনা, ছাত্রজীবন রচনা class 2, সমাজের প্রতি ছাত্র ছাত্রীদের কর্তব্য, শিক্ষাঙ্গনে সন্ত্রাস, শিক্ষাঙ্গনে সন্ত্রাস রচনা, শিক্ষাঙ্গনে সন্ত্রাস, শিক্ষাঙ্গনে সন্ত্রাস প্রতিবেদন, শিক্ষাঙ্গনে ছাত্রলীগের সন্ত্রাস, ছাত্র রাজনীতির উপকারিতা, ছাত্র রাজনীতির গুরুত্ব, ছাত্র সমাজ ও রাজনীতি রচনা, ছাত্র রাজনীতি রচনা, ছাত্রজীবনের দায়িত্ব ও কর্তব্য, ছাত্রজীবন রচনা class 2, ছাত্র রাজনীতির বর্তমান অবস্থা, ছাত্র রাজনীতি কেন প্রয়োজন, শিক্ষা ও রাজনীতি pdf, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে রাজনীতি বর্জন করা উচিত, ছাত্র রাজনীতির ইতিহাস, ছাত্র রাজনীতির ইতিবাচক দিক।


আরো পড়ুন:


পরবর্তী পোস্ট পূর্ববর্তী পোস্ট
No Comment
আপনার মন্তব্য জানান
comment url