অর্থই অনর্থের মূল | ভাব সম্প্রসারণ

অর্থই অনর্থের মূল।

অর্থই অনর্থের মূল | ভাব সম্প্রসারণ

মূলভাব : পার্থিব জীবনে অর্থের প্রয়োজন সর্বাধিক হলেও পৃথিবীতে অধিকাংশ অন্যায় ও অঘটনের উৎস হলো অর্থ ।

সম্প্রসারিত ভাব : জীবনধারণের জন্য অর্থের প্রয়োজনীয়তা অপরিহার্য । জীবনের সীমাহীন অভাব পূরণের জন্যে প্রয়োজন অর্থের । অর্থ ছাড়া মানুষের জীবন একেবারেই অচল । তাই মানুষ তার কাঙ্ক্ষিত অর্থ উপার্জনের জন্য কঠোর পরিশ্রম এবং নানা প্রতিকূলতার সাথে সংগ্রাম করে । বর্তমান সমাজে একমাত্র অর্থের মাপকাঠি দ্বারাই প্রতিপত্তি ও সম্মান নির্ণীত হয় । প্রখ্যাত সাহিত্যিক মীর মশাররফ হোসেন বলেছেন , “ জন্মমাত্র টাকা , জীবনে টাকা , জীবনান্তেও টাকা , জগতে টাকারই খেলা । " আবার এ অর্থই পৃথিবীর সমস্ত অমঙ্গলের জন্য দায়ী । অর্থের লোভে নীতি বিসর্জন দিয়ে মানুষ অহরহ দুষ্কর্মে লিপ্ত হয় । কেননা মানুষের অর্থলিপ্সার কোনো শেষ নেই । সীমাহীন অর্থলালসা মানুষের নৈতিক অধঃপতন ঘটায় । অর্থের লোভেই মানুষ নানা প্রকার সমাজবিরোধী কাজে লিপ্ত হয়ে সামাজিক অবক্ষয়ের কারণ হয়ে দাঁড়ায় । পৃথিবীর যত দ্বন্দ্ব , অশান্তি ও সংঘাতের মূল কারণ অর্থ । অর্থ - সম্পদের স্বার্থেই রাষ্ট্রে - রাষ্ট্রে যুদ্ধের উন্মাদনা জাগে , শ্রমিক - মালিকে দেখা দেয় মতবিরোধ এবং ভাইয়ে - ভাইয়ে শুরু হয় চরম শত্রুতা । অর্থের লোভেই মানুষ মানুষকে খুন করে । সমাজে ঘুষ , দুর্নীতি , রাহাজানি , কালোবাজারি কিংবা চোরাচালানির মতো জঘন্য কাজগুলো সংঘটনের পেছনে রয়েছে মানুষের অর্থলিপ্সা । অর্থই মানুষের সমস্ত অধঃপতনের কারণ । তাই মীর মশাররফ হোসেন দুঃখ করে বলেছেন , “ হায় রে পাতকী অর্থ ! তুই জগতে সকল অনর্থের মূল । "

মন্তব্য : যে অর্থ জীবনযাপনের জন্য অপরিহার্য , সে অর্থই বসে আছে পৃথিবীর সকল অন্যায় , অপকর্ম ও অনৈতিকতার মূলকেন্দ্রে । তাই ‘ অর্থই অনর্থের মূল ' কথাটি চরম বাস্তব ও তাৎপর্যপূর্ণ ।

ভিডিও দেখুন



আরো পড়ুন:
পরবর্তী পোস্ট পূর্ববর্তী পোস্ট
No Comment
আপনার মন্তব্য জানান
comment url