আমাদের মহান বিজয় দিবস রচনা | বিজয় দিবস রচনা | মহান বিজয় দিবস রচনা

আমাদের মহান বিজয় দিবস

আমাদের মহান বিজয় দিবস রচনা | বিজয় দিবস রচনা | মহান বিজয় দিবস রচনা

ভূমিকা:

বিজয় দিবস বাংলাদেশের ইতিহাসে একটি গুরুত্বপূর্ণ উপলক্ষ। এই দিনটি ১৯৭১ সালে অত্যাচারী পাকিস্তানি শাসনের বিরুদ্ধে বাঙালি জনগণের বিজয়কে স্মরণ করে। এই দিনটি স্বাধীনতার জন্য দেশের কঠোর-সংগ্রাম এবং স্বাধীনতার প্রতি অঙ্গীকারের প্রতীক। প্রতি বছর ১৬ ই ডিসেম্বর বাংলাদেশে বিজয় দিবস হিসেবে পালিত হয়। এ দিনটি প্রতিটি বাঙালি নাগরিকের কাছে তাদের সম্মিলিত শক্তি এবং সার্বভৌমত্ব অর্জনের জন্য করা ত্যাগের কথা স্মরণ করিয়ে দেয়।

ঐতিহাসিক পটভূমি:

বিজয় দিবসের গুরুত্ব বোঝার জন্য আমাদের অবশ্যই সেই ঐতিহাসিক প্রেক্ষাপট সম্পর্কে জানতে হবে যা বাংলাদেশকে স্বাধীনতা সংগ্রামের দিকে পরিচালিত করেছিল। যে অঞ্চলটি এখন বাংলাদেশ তা ১৯৪৭ সাল পর্যন্ত ব্রিটিশ ভারতের অংশ ছিল। তরপর এটি দুটি পৃথক দেশে বিভক্ত হয়েছিল: ভারত এবং পাকিস্তান।  যাইহোক, পূর্ব ও পশ্চিম পাকিস্তানের মধ্যে ভৌগোলিক দূরত্ব এবং সাংস্কৃতিক পার্থক্য বাঙালি জনগোষ্ঠীর মধ্যে বিচ্ছিন্নতার বোধ তৈরি করে।

শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ বৃহত্তর স্বায়ত্তশাসন ও সমঅধিকারের দাবিতে বাঙালির কণ্ঠস্বর হিসেবে আবির্ভূত হয়। পশ্চিম পাকিস্তানিদের অধ্যুষিত পাকিস্তানি সরকার পূর্ব পাকিস্তানিদের আকাঙ্ক্ষাকে ক্রমাগত দমন করে, যার ফলে ব্যাপক অসন্তোষ ও বিক্ষোভ দেখা দেয়।

স্বাধীনতার সংগ্রাম:

১৯৭১ সালে পশ্চিম পাকিস্তান পূর্ব পাকিস্তানের উপর নৃশংস সামরিক দমন-পীড়ন শুরু করলে স্বাধীনতার সংগ্রাম চরম পর্যায়ে পৌঁছে। পাকিস্তানি সেনাবাহিনী নিরীহ বাঙালি, বুদ্ধিজীবী এবং আওয়ামী লীগের সদস্যদের লক্ষ্য করে চালায় সহিংসতার ঢেউ । এই নিপীড়নের জবাবে শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে বাঙালি জনগণ একত্রিত হয়। তারা মুক্তিবাহিনী (মুক্তিযোদ্ধা) গঠন করে এবং পাকিস্তানি বাহিনীর বিরুদ্ধে বীরত্বের সাথে যুদ্ধ করে।

মুক্তিযুদ্ধ:

নয় মাসব্যাপী মুক্তিযুদ্ধ, বাঙালি জনগণের বীরত্ব, ত্যাগ ও স্থিতিশীলতার অগণিত কর্মকাণ্ডের সাক্ষী ছিল। পাকিস্তান হানাদার বাহিনী সংখ্যায় অনেক বেশি এবং অগণিত হওয়া সত্ত্বেও দৃঢ়সংকল্প এবং চেতনার সাথে বাঙালিরা লড়াই করেছিল। মুক্তিবাহিনীর গেরিলা যুদ্ধের কৌশল, স্বাধীনতার প্রতি তাদের অটল অঙ্গীকারের সাথে মিলিত হয়ে পূর্ব পাকিস্তানে পশ্চিম পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর দখলকে ধীরে ধীরে দুর্বল করে দেয়।

বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামে আন্তর্জাতিক সমর্থনও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে।  ভারতের মতো দেশ, যারা লাখ লাখ বাঙালি উদ্বাস্তুকে সামরিক সহায়তা ও আশ্রয় দিয়েছিল এবং স্বাধীনতার লড়াইয়ে একাত্মতা প্রকাশ করেছিল। বাংলাদেশকে একটি স্বাধীন জাতি হিসেবে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের স্বীকৃতি মুক্তিযোদ্ধাদের মনোবল আরও চাঙ্গা করেছিল।

বিজয় ও স্বাধীনতা:

১৯৭১ সালের ১৬ই ডিসেম্বর, মুক্তিযুদ্ধের সমাপ্তি উপলক্ষে পাকিস্তানি সেনাবাহিনী মুক্তিবাহিনী এবং ভারতীয় সেনাবাহিনীর যৌথ বাহিনীর কাছে আত্মসমর্পণ করে। বাংলাদেশ অবশেষে তার বহু প্রতীক্ষিত স্বাধীনতা অর্জন করে, কিন্তু একটি বড় মূল্য দিয়ে। যুদ্ধ অগণিত বাঙালি বেসামরিক নাগরিকের জীবন দাবি করেছিল এবং জাতিকে করেছিল ক্ষতবিক্ষত।

বিজয় দিবসের তাৎপর্য:

বিজয় দিবস প্রতিটি বাংলাদেশী নাগরিকের স্মরণ ও কৃতজ্ঞতার দিন। এটি তাদের স্বাধীনতা সুরক্ষিত করার জন্য আমাদের পূর্বপুরুষদের ত্যাগের একটি স্মারক হিসাবে কাজ করে। দিবসটি অত্যন্ত উত্সাহ, দেশপ্রেম এবং জাতির জন্য যারা জীবন উৎসর্গ করেছেন তাদের প্রতি শ্রদ্ধার সাথে পালিত হয়।

অনুষ্ঠান:

বিজয় দিবস উদযাপন সারাদেশে বিভিন্ন অনুষ্ঠান ও কর্মকান্ডের মাধ্যমে পালন করা হয়। সূর্যোদয়ের সময় ৩১ বন্দুকের স্যালুট এবং জাতীয় পতাকা উত্তোলনের মধ্য দিয়ে দিনটি শুরু হয়। মুক্তির চেতনার প্রতীক লাল-সবুজ পতাকায় শোভা পায় রাজপথ।

মূল অনুষ্ঠানটি সাভারের জাতীয় স্মৃতিসৌধে অনুষ্ঠিত হয়, যেখানে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী স্মৃতিস্তম্ভে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। স্মৃতিসৌধটি মুক্তিযুদ্ধের আত্মত্যাগের প্রমাণ হিসেবে দাঁড়িয়ে আছে। সারাদেশে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, কুচকাওয়াজ, শোভাযাত্রার আয়োজন করা হয়। দিবসটি জাতির জন্য গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখা ব্যক্তিদের সর্বোচ্চ রাষ্ট্রীয় সম্মান প্রদানের সাক্ষী।

উপসংহার:

বাংলাদেশের বিজয় দিবস শুধু সামরিক বিজয়ের উদযাপন নয়; এটি বাঙালি জনগণের স্থিতিস্থাপকতা, সংকল্প এবং অদম্য চেতনার উদযাপন। স্বাধীনতা ও স্বাধীনতার জন্য লড়াই করা অগণিত ব্যক্তির আত্মত্যাগকে স্মরণ করার দিন। বিজয় দিবস একটি ধ্রুবক অনুস্মারক হিসাবে কাজ করে যে স্বাধীনতার সংগ্রাম কেবল একটি ঐতিহাসিক ঘটনা নয় বরং বাংলাদেশের কঠোর অর্জিত সার্বভৌমত্ব রক্ষার একটি চলমান অঙ্গীকার।

ভিডিও দেখুন



আরো পড়ুন:
পরবর্তী পোস্ট পূর্ববর্তী পোস্ট
No Comment
আপনার মন্তব্য জানান
comment url