বিদ্যার সঙ্গে সম্পর্কহীন জীবন অন্ধ এবং জীবনের সঙ্গে সম্পর্কহীন বিদ্যা পঙ্গু | ভাব-সম্প্রসারণ

বিদ্যার সঙ্গে সম্পর্কহীন জীবন অন্ধ এবং জীবনের সঙ্গে সম্পর্কহীন বিদ্যা পঙ্গু

বিদ্যার সঙ্গে সম্পর্কহীন জীবন অন্ধ এবং জীবনের সঙ্গে সম্পর্কহীন বিদ্যা পঙ্গু | ভাব-সম্প্রসারণ

মূলভাব : মানুষের জীবনে বিদ্যা বা জ্ঞানের বিশেষ প্রয়োজনীয়তা রয়েছে এবং এই বিদ্যার সাহায্যে মানবজীবনকে সার্থক ও সুন্দর করে গড়ে তোলা যায় ।

সম্প্রসারিত ভাব : বিদ্যা এমন এক ধরনের অদৃশ্য আলো যার ছোয়ায় মানুষের মনের অন্ধকার দূর হয়ে যায় । তাই বিদ্যাহীন ব্যক্তি অন্ধের মতোই । অন্ধ মানুষ যেমন দৃষ্টিশক্তির অভাবে কিছুই দেখতে পারে না , অন্ধকারাচ্ছন্ন পৃথিবীতে তাকে হাতড়িয়ে চলতে হয় ; বিদ্যাহীন মানুষও তেমনি চোখ থেকেও জীবনের স্বরূপ উদঘাটনে ব্যর্থ । বিদ্যা মানুষকে অজ্ঞানতা , কুসংস্কার ও সংকীর্ণতা দূর করতে মনের দৃষ্টিকে প্রসারিত করে । যার বিদ্যা নেই সে এ দৃষ্টিশক্তি থেকে বঞ্চিত । তাই চোখ থেকেও সে অন্ধেরই শামিল । আবার বিদ্যাকে যদি জীবনের প্রয়োজনে কাজে লাগানো না যায় বা গৃহীত বিদ্যা যদি জীবনবোধকে জাগ্রত না করে তাহলে তার কোনো মূল্য নেই । হাদীস শরীফে বর্ণিত আছে , ' বিদ্যার মতো চক্ষু আর নেই , সত্যের চেয়ে বড় তপস্যা আর নেই । বিদ্বানের কলমের কালি শহীদের রক্তরসের চেয়েও পবিত্র । রিপুর তাড়নায় এবং মোহের বশে যে বিদ্যা নামক পরম ধনের অনুশীলন করা থেকে বিরত থাকে তার মতো অভাগা এ জগতে আর একটি নেই । তাই মানবজীবনকে সুন্দর , সতেজ ও সাবলীল করে গড়ে তুলতে হলে বিদ্যাকে অবশ্যই জীবনধর্মী হতে হবে । জীবনকে গতিময় , বাস্তব ও কর্মমুখী করতে হলে যেমন বিদ্যা অর্জন অত্যাবশ্যক , তেমনি অর্জিত বিদ্যাও হতে হবে জীবনের সঙ্গে সম্পৃক্ত । যেকোনো বিদ্যাই হোক না কেন তা যদি সুখ - শান্তি , সমৃদ্ধি ও চিত্ত বিকাশে সহায়ক না হয় তবে সে বিদ্যার্জন অনর্থক ।

মন্তব্য : জীবনের সাথে সম্পর্কহীন বিদ্যা অর্জন করা আর পঙ্গু জীবনযাপন করা — দুটোই সমান অর্থহীন ।

ভিডিও দেখুন



আরো পড়ুন:
পরবর্তী পোস্ট পূর্ববর্তী পোস্ট
No Comment
আপনার মন্তব্য জানান
comment url